জনদূর্ভোগ লাঘবে বীর মুক্তিযোদ্ধা  মেয়র বদিউল আলম-১ নং ওয়ার্ড, সীতাকুণ্ড পৌরসভা বীর মুক্তিযোদ্ধা মেয়র বদিউল আলম Full view

জনদূর্ভোগ লাঘবে বীর মুক্তিযোদ্ধা মেয়র বদিউল আলম-১ নং ওয়ার্ড, সীতাকুণ্ড পৌরসভা

উন্নয়নে সীতাকুণ্ড পৌরসভা পর্ব-১

 জয়নাল আবেদিন:-

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের গৃহিতো বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পের ( এম.জি.এস.পি,ADP, IUIDP)কাজের অগ্রগতি ও চলমান বিষয় নিয়ে সীতাকুণ্ড বার্তার বিশেষ প্রতিবেদন
“উন্নয়নে পৌরসভা “ও “উন্নয়নে ইউনিয়ন পরিষদ”।

বর্তমান সরকারের নির্বাচিতো সীতাকুণ্ডের পৌর মেয়র ও ইউপি চেয়ারম্যানবৃন্দ কি কি উন্নয়ন কাজ করেছেন এবং কি কি কাজ চলমান,প্রকৃতো বাজেট কত? এসব জানা জনগনের নৈতিক দায়ীত্ব।
আমরা সেই সব তথ্য আপনাদের জ্ঞাতার্থে তুলে ধরার ক্ষুদ্র চেষ্টা করবো।সাথে থাকুন আমাদের নিউজ পড়ুন।

তারই ধারাবাহিকতায় আজ প্রথম পর্ব “উন্নয়নে সীতাকুণ্ড পৌরসভা মেয়র বীরমুক্তিযোদ্ধা বদিউল আলম” ১ নং ওয়ার্ড

২০১৫ সালে বর্তমান মেয়র বীরমুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব বদিউল আলম দায়ীত্ব নেওয়ার পর থেকে আজ পর্যন্ত(২০২০) অত্র পৌরসভার ১ নং ওয়ার্ডে এমজিএসপি,এডিপি ও আইইউআইডিপি প্রকল্পের আওতায় মোট প্রায় চার কেটি টাকার উন্নয়ন করেছেন এবং কিছু চলমান উন্নয়ন কাজ বাকি রয়েছে।

এ ব্যাপারে মেয়র বদিউল আলমের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন আমি দায়ীত্ব নেওয়ার পর মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নের ২০২১ চেলেঞ্জ বাস্তবায়িত করার লক্ষে পৌরভার যে সকল কাজ খুবই প্রয়োজন এবং দ্রুত করতে হবে সেসব উন্নয়ন কাজে আগে হাত দেই।তারই ধারাবাহিকতায় প্রতিটি ওয়ার্ড কাউন্সিলর এর চাহিদা মত তাদের ওয়ার্ডের উন্নয়নগুলি দ্রুত করার চেষ্টা করেছি। ৯০% কাজ ইনশাআল্লাহ শেষ করতে পেরেছি আরও কিছু চলমান আছে।আমাদের পৌর ইঞ্জিনিয়ার এর কাছে সব তথ্য আছে। আপনারা জনগনের কাছে সঠিক তথ্য তুলে ধরবেন বলে আমি আশা করি এবং বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রকাশ করবেন।

উক্ত ১ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আনোয়ার ভুইঁয়া বলেন আমার ওয়ার্ডের অনেক উন্নয়ন হয়েছে আরও কাজ বাকি রয়েছে।আমার এলাকার চাহিদামত উন্নয়ন করতে চেষ্টা করছি। মেয়র মহদয় উন্নয়ন কাজে বেশ আন্তরিক তাই আমাদেরও কাজ করতে কষ্ট হয়নি।আমি দায়ীত্ব নেওয়ার পর থেকে আমার ১ নং ওয়ার্ডে এ পর্যন্ত প্রায় চার কোটি টাকার উন্নয়ন প্রকল্প হাতে নিয়েছি যা আগের সময়ের রেকর্ড ছাড়িয়ে গেছে।

আমরাও পিছিয়ে নেই মেয়র ও কাউন্সিলর এর কথার সত্যতা যাচাই করতে আমরা ইঞ্জিনিয়ার এর কাছ থেকে রেকর্ডকৃত তথ্য সংগ্রহ করি। রেকর্ড অনুযায়ী ২০১৬-২০১৭অর্থ বছরে এমজিএসপির আওতায় উন্নয়ন কাজ সমূহ

**১,৫৬,৫৫,৫৭৩ টাকা ব্যায় এ নুনাছড়ার এনামুল হক ভুইঁয়া সড়ক (ধনগাজী রোড) আরসিসি দ্বারা উন্নয়ন এবং ছড়ার পার্শ্বে আরসিসি রিটেইনিং ওয়াল নির্মান করা হয়।

নুনাছড়া ও ইকোপার্ক সংযোগ সড়কে রিটেইনিং গাইড ওয়াল

**২০১৮-২০১৯ অর্থ বছরে ৬৭,৩৮,৯৩৩.৯৭ টাকা ব্যায় এ নুনাছড়া হতে ইকোপার্ক সড়কে আরসিসি দ্বারা কাজ চলমান।

নুনাছড়া রেল লাইনের পূর্বে পাহাড় পর্যন্ত সড়ক কাজ চলমান

** ৫,২১,০৩৮.৪৪ টাকা ব্যায় এ নুনাছড়া হতে ইকোপার্ক সড়কে কালভার্ট নির্মান হয়।

**৮২,৬৪,৪৪৩.৬০ টাকা ব্যায় এ নুনাছড়া হতে ইকোপার্ক সড়কে আরসিসি রিটেইনিং ওয়াল নির্মান হয়।

**এডিপি এর আওতায় ২০১৬-২০১৭ অর্থ বছরে ৮,১৭,২৬০ টাকা ব্যায় এ নুনাছড়া মসজিদ রোড কার্পেটিং করা হয়।

** ১২,২৬,৫৭১ টাকায় বদ্দার রোড ম্যাকাডাম দ্বারা উন্নয়ন ও উত্তর মহাদেবপুর সড়কে কালভার্ট নির্মান হয়।

**২০১৯-২০২০ অর্থ বছরে ১২,৫১,৩৩৪ টাকায় মৌলভী মোহাম্মদুর রহমান সড়কে রেল লাইন হতে পূর্ব দিকে কার্পেটিং ও সিসি দ্বারা রাস্তা উন্নয়ন কাজ চলমান।

**১০,৮২,৬৫৫ টাকায় এয়াকুব নগর মসজিদ সড়কে আরসিসি ফুট ব্রীজ নির্মান চলমান।

উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে মেয়র বদিউল আলম ও ওয়ার্ড কাউন্সিলর আনোয়ার হোসেন ভুইঁয়া জনগনকে তথ্য দিয়ে সহায়তা করার অনুরোধ জানান এবং এলাকার উন্নয়নে সহযোগীতা ও দোয়া চান।

ভিডিও নিউজ

Written by Mohammad Ismail

ওয়ার্ডপ্রেস ডেভলপার। গ্রাফিক্স ডিজাইনার।

Leave a comment